মৃত্যুর ৪ ঘণ্টা পরও প্রসূতিকে রক্ত প্রদান, চিকিৎসকসহ আটক ৫

নারায়ণগঞ্জের মেডিস্টার জেনারেল হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় সাদিয়া তাহমিনা ঝুমা (২৭) নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই হাসপাতালে ভাঙচুর চালিয়েছে নিহতের স্বজনরা। এ সময় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ডা. অমল কুমার পোদ্দারসহ পাঁচজনকে আটক করেছে পুলিশ। তবে ভুল চিকিৎসায় মায়ের মৃত্যু হলেও সন্তান ভালো আছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর আড়াইটার দিকে শহরের ডনচেম্বার এলাকাস্থ মেডিস্টার জেনারেল হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। তবে ঘটনার পরপরই হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পালিয়ে যায়।

নিহত সাদিয়া তাহমিনা ঝুমা ফতুল্লার উত্তর মাসদাইরের গাবতলী এলাকার কামরুল হাসান শরীফের স্ত্রী।

আটকরা হলেন- ডা. অমল কুমার পোদ্দার, ডা. বদরুদ্দোজা, নার্স লাকী, ঝর্ণা ও অপর এক নার্স।

নিহত ঝুমার মামা শ্বশুর কাউছার আহম্মেদ বাদল বলেন, ঝুমাকে সিজারের জন্য বৃহস্পতিবার সকালে মেডিস্টার হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সকাল সাড়ে ৭টায় ডা. অমল কুমার পোদ্দার সিজার করতে রোগীকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যান। ঝুমার জরায়ুর সমস্যার কারণে তাকে পরপর তিনবার অপারেশন করা হয়। পরে চিকিৎসক হাসপাতাল ত্যাগ করেন। ওই সময় ঝুমার প্রচুর রক্তক্ষরণ হলেও তেমন একটা গুরুত্ব দেয়া হয়নি। ৩ থেকে ৪ ঘণ্টা আগে ঝুমা মারা গেলেও তাকে ৪ ব্যাগ রক্ত দেয়া হয়। পরে আমাদেরকে মৃত্যুর খবর জানালে হাসপাতাল ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে।

তিনি বলেন, ডাক্টারকে আমরা বারবার বলেছি যদি আপনারা না পারেন রোগীকে ছেড়ে দেন। আমরা ঢাকা নিয়ে যাই। তারপরও তাকে হাসপাতালে রেখেছে। আমরা মনে করি ডাক্টার আমাদের রোগীকে হত্যা করেছে।

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি (অপারেশন) জয়নাল ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *