দাগনভূঞায় রাস্তার পাগলী নবজাতকের মা ॥ এর দায় কার ?

সমাজ যখন আধুনিকতার স্পর্শে নবদিগন্তের নতুন সূচনা করে পৃথিবীর অজানাকে জানিয়ে দিচ্ছে ঠিক তেমনি সমাজে মানবিকতা হারিয়ে বিবেকহীন স্পর্শে মানসিক ভারসাম্যহীন এক রাস্তার পাগলীর সন্তান প্রসব করে সমাজকে ঘৃণা জানায়।

গত (৯মার্চ) দুপুরে ফেনী দাগনভূঞা থানা পুলিশের সহযোগিতায় একটি নবজাতক পুত্র সন্তান ফেনী জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে অাসেন পুলিশ সদস্যরা। তারা জানায় উপজেলার গণিপুর এলাকায় একটি বাড়িতে একজন পাগলীর একটি বাচ্চা হয়েছে বলে স্থানীয়রা পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ গিয়ে মুমূর্ষ অবস্থায় থাকা মানসিক ভারসাম্যহীন পাগলীটিকে উদ্ধার করে তার নবজাতক সন্তানসহ ফেনী জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে অাসেন।স্থানীয়ারা বলছেন পাগলীটিকে বেশ কয়েক মাস দাগনভূঞা বাজার এলাকায় ঘুরাফেরা করতে দেখা গেছে।

মানসিক ভারসাম্যহীন পাগলীটি বর্তমানে ফেনী জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এবং জেলা প্রশাসন ও জেলা সিভিলসার্জনের নির্দেশনায় নবজাতক পুত্র সন্তানটি ফেনীর মানবিক ও সেচ্ছাসেবী সংগঠনক “সহায়” এর তত্বাবধানে জেলা সদর হাসপাতালের ৪০২ নং কেবিনে রয়েছে।

এ দায় কার ? সহায় সংগঠন বর্তমানে ছেলেটির লালন পালন করছেন কিন্তুু সে কি জানতে চাইবে না যে তার বাবা কে ? সমাজে কারা এই সব সন্তানের জন্ম দেয় ? সমাজে পুরুষরা কি এতোই নিলর্জ্জ, এতই কাম-ভাবাবেগপূর্ণ যেন সমাজের মাথা খেয়ে এই পাগল যুবতীকে তার লালসার শিকার বানিয়ে তাকে ব্যবহার করেছে। ছি. ছি. সেই সব পুরুষদের। একি তাদের আত্মমূল্যবোধ, একি সমাজের মূল্যবোধ। সমাজ আজ চেয়ে চেয়ে দেখছে।

মুহাম্মদ দুলাল তালুকদার, চিত্র সাংবাদিক।

Share Button

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *